রুকইয়াহর চিকিতসা প্রসেস !

জীন/জাদূর সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন/পাগল হয়ে ওনেক বছর ডাক্তার কবিরাজের পিছনে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে কোন উপকার না পেয়ে শেষ ও সঠিক চিকিৎসা নিতে যখন রুকইয়াহ শরঈয়াহ করতে আসে তখন সেশন চার্জ ৩হাজার টাকাও ওনেক বেশি মনে হয়।
কারন রাকিতো ডাক্তার না।
অথচ ডাক্তার যেখানে ফেল করেছে সেই রোগীর চিকিৎসা রাকি করেন কুরআন দিয়ে। সেটার মূল্যতো তাহলে ডাক্তারের চেয়ে বেশি হওয়া দরকার।
একটা ধারণা দেই ঃ
১. সাধারণ দূর্বল জীন/জাদূ আক্রান্ত রোগীর যদি ৩/৪ সেশন রুকইয়াহ করতে হয় তাহলে খরচ হয় ১২-১৫ হাজার টাকা।
২. যদি একটু জটিল কেস হয় তাহলে ৫/৭ সেশন দরকার হয় তাহলে লাগে ১৫-২১ হাজার টাকা।
৩. আর যদি অনেক সিরিয়াস কেস হয় ৫-১০ বছরের সমস্যা তাহলে ১০-১৫ সেশন বা তার বেশিও লাগতে পারে তাতে খরচ আসে ৩০/৪০ হাজার টাকা।
সবার যে এরকম লাগবে ব্যাপারটা তা না।আল্লাহর সাহায্য, রহমত ও রোগীর ঈমানের দৃঢ়তা থাকলে খুব তাড়াতাড়িও সুস্থ হতে পারে রোগী।
রোগীর সুস্থতা আল্লাহর ফায়সালা ও সাহায্যের উপর নির্ভরশীল।
এবার আসুন এসব রোগীরা পূর্বে ডক্টর ও কবিরাজের পেছনে সচরাচর লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে ফেলেছে রোগ না ধরতে পেরে। উপকারও পাননি।
আবার ওনেকে জীন/জাদূ আক্রান্ত হয়ে পাগলা গারদে ভর্তী হয়েছে কেউ আইসিউতে, বড়ই হাস্যকর দীন ইসলামের জ্ঞান না থাকলে এইরকম ভূল করবে এটাই সাভাবিক।
এখন কথা হলো এই তাদের টাকাগুলো কি জলে যায় নি?
সে তুলনায় এই ১০/১৫, ২০/৩০ হাজার টাকা কিছুই না। অথচ এই অল্প খরচেই রোগী সুস্থ হয়ে যাচ্ছে আল্লাহর রহমতে।
এখন কি রাকির খরচ বেশি হয়ে গেলো?
একজন রোগীর সুস্থ হওয়ার জন্য রুকইয়াহ করতে একজন রাকিকে গাধার মতো কামলা খাটুনী দেয়া লাগে। সেটা রাকি ছাড়া আম-পাবলিক বুজবেনা।
আপনারা কি গ্যারান্টি দিয়ে চিকিৎসা করেন যে আপনাদের কাছে চিকিৎসা নিলে রোগী সুস্থ হবেই? কাজ হবেই নইলে টেহা ফেরত!
উত্তরঃ না। এরকম কবিরাজদের মত গ্যারানটির কথা বলে ও যারা চায় তাদের চিকিৎসা করি না। হ্যা তবে আমরা যে প্রসেসে রুকইয়াহ ও হিজামা করে চিকিৎসা দেই ইনশাআল্লাহ এই প্রসেসে রোগীরা সুস্থ হয়ে যাবে সেটা আমাদের কাছে চিকিৎসা নিক বা অন্য কারও কাছে। আপনি ২-১ সেশন রুকইয়াহ করে যদি মনে করেন উপকার পাননি সন্তুষ্ট নন সমস্যা নেই চাইলে আপনার দেয়া পেমেন্ট ফেরত নিতে পারেন ইনশ ইনবক্সে নক দিয়ে বিকাশ নম্বর দিন পাঠিয়ে দিব ইনশ আল্লাহ।
সমাজে যারা গ্যারানটিওয়ালা চিকিৎসক তারা বেশিরভাগই ধোঁকাবাজ। কয়েকবার তাদের কাছে ধোকা খেয়ে শিক্ষা হলে তারপর রুকইয়াহ কইরেন কারও কাছে। রুকইয়াহ যারা করে তারা গ্যারান্টি দেয় না, রাকিরা কারও সুস্থতার ডিলারশীপ নিয়ে বসে থাকে না। সুস্থতার মালিক আল্লাহ।
এ সম্পর্কে একজন লিখেছেন -” আসলে রুকইয়াহ সম্পূর্ণ একটি ইসলামিক চিকিৎসা পদ্ধতি। ভাল করার মালিক তো আল্লাহ…চিকিৎসকের কাজ চিকিৎসা করা। এটাই একমাত্র চিকিৎসা যা একদম সঠিক। আল্লাহর কালামে চিকিৎসা করা হয়।
রোগ যদি প্রখর ও হয়,ধৈর্য নিয়ে লেগে থাকতে হয় ইনশাআল্লাহ একসময় সুস্থতার নেয়ামত আল্লাহ দেন। বদনজর,জ্বিনের সমস্যা,জাদু করা ইত্যাদির জন্য রুক্বইয়াহ থেকে বেস্ট, হালাল এবং কুফরি মুক্ত চিকিৎসা আর নেই।
আল্লাহর কালামে যে চিকিৎসা হয় তা তো অবশ্যই ভাল। আর সুস্থতার নেয়ামত দেয়ার মালিক একমাত্র আল্লাহ।আমাদের কাজ চেষ্টা করা।”
শেয়ার করুন।
এডমিন
এপয়েনটমেনট নিতে কল/মেসেজ দিন
সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টার মধ্যে এই নম্বরে ০১৭৬৩ ৯৫১ ৩৭১